শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

অটোচালকের মৃত্যুর ঘটনায় মেয়রের ঘটনাস্থল পরিদর্শন- ঝুকিপূর্ণ সেতু মেরামতের আশ্বাস

এস এ রুবেল | রবিবার, ১০ মে ২০২০ | পড়া হয়েছে 144 বার

অটোচালকের মৃত্যুর ঘটনায় মেয়রের ঘটনাস্থল পরিদর্শন- ঝুকিপূর্ণ সেতু মেরামতের আশ্বাস

নবীনগরে ঝুকিপূর্ণ সেতু পার হতে গিয়ে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা উল্টে অটোচালকের নিহতের ঘটনায় আজ রবিবার দুপুরে ঘটনাস্থল এলাকা পরিদর্শন করেন পৌর মেয়র এডভোকেট শিব শংকর দাশ।

গতকাল (৯ মে) সন্ধ্যায় পৌর এলাকার আলমনগর গ্রামের প্রবেশমুখে বাক খাওয়া রাস্তায় রেলিং বিহীন ব্রিজে উঠতে গেলে অটোরিকশা উল্টে খাদে পড়ে আসাদুল নামে এক অটোচালকের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে।


দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঝুকিপূর্ণ ব্রিজ এলাকা পরিদর্শন করেন পৌর মেয়র। তিনি ৮৭/৮৮ সালের দিকে নির্মিত মরন ফাঁদ হিসেবে পরিচিত এই ব্রিজটি দ্রুত সংস্কার করে চলাচলের উপযোগী করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন। এছাড়া পৌর মেয়র জানান, পবিত্র ঈদুল আযহার আগেই দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এ ব্রিজের সংস্কার কাজ শেষ করা হবে বলে জানিয়েছেন।
ঘটনাস্থল এলাকা পরিদর্শনের সময় মেয়রের সাথে উপস্থিত ছিলেন, পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র জনাব আবু হানিফ,৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু সাঈদ,৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গনিচাঁন মকসুদ,বিশিষ্ট সমাজ সেবক কামাল উদ্দিন,উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল্লাহ আল রোমান, ১নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি নুর আলম, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মোঃ ওমর ফারুক প্রমুখ।

উপজেলার আলমনগর উত্তর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ঝুঁকিপূর্ণ ‘আলমনগর সেতুটি গত ২০ বছরে প্রায় ৫ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। পঙ্গু করেছে অসংখ্যা মানুষের।

সরজমিনে এলাকায় গিয়ে লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার পশ্চিম উত্তরাঞ্চলের প্রায় ১০টি গ্রামের হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন ভাঙ্গাচোরা ও অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এই সেতুটির ওপর দিয়ে উপজেলা ও জেলা সদরে যাতায়াত করে থাকেন। প্রায় দুই যুগ আগে সেতুটি নির্মাণ হওয়ার পর গত কয়েক বছর আগে সেতুর বিভিন্ন স্থান থেকে পলেস্তরা উঠে গিয়ে সেতুটি মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। পাশাপাশি সরু এই সেতুর দুই পাশের রেলিং সম্পূর্ণ ভেঙ্গে যাওয়ায় গত কয়েক বছর ধরে রেলিংয়ের স্থানে বাঁশ লাগিয়ে যাত্রীবাহী সকল যানবাহনকে অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে। ফলে সেতুটিতে উঠতে গিয়েই ঘটছে নানা দুর্ঘটনা।

এলাকার প্রাক্তন সেনা সদস্য ও নবীনগর অবসরপ্রাপ্ত সৈনিক সমাজ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিনের ভাষ্যমতে ‘৮৭/৮৮ সালের দিকে ভাটা নদীর ওপর সেতুটি নির্মিত হয়। কিন্তু ৫/৭ বছর আগে জনগুরুত্বপূর্ণ এই সেতুর বিভিন্ন অংশ ভেঙ্গে যাওয়ার পরও মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে এলাকার ১০ গ্রামের মানুষ বর্তমানে এই সেতুটির ওপর দিয়ে যাতায়াত করছেন।’

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান, আলমনগর গ্রামের বাসিন্দা শাহ জিকরুল আহমেদ খোকন এমপি যখন (২০০৮-১৪) সালের দিকে সংসদ সদস্য ছিলেন, এলাকাবাসীর প্রচণ্ড দাবির মুখে তখনও ব্রিজটি নির্মিত হয়নি। তাই এর দায় সাবেক এমপি হিসেবে তিনিও এড়াতে পারবেন না।’

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী অফিস সুত্রে জানা গেছে, ‘৩৫ মিটার দীর্ঘ গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটি নির্মাণ করতে প্রায় ২ কোটি টাকা লাগবে। ইতিমধ্যে এলজিইিডির প্রজেক্ট ডিরেক্টর আমাদের কাছে লিখিতভাবে সেতুটি নির্মাণের প্রাথমিক তথ্যাদি চেয়েছেন। আশা করছি, খুব শিগগীরই সেতুটি নতুন করে নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু হয়ে যাবে।’

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25210 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১