শিরোনাম

প্রচ্ছদ খোলা কলাম, শিরোনাম, স্লাইডার

আপনারা যারা অতি লজ্জিত

মুহাম্মদ মনিরুল হক | মঙ্গলবার, ১৪ এপ্রিল ২০২০ | পড়া হয়েছে 638 বার

আপনারা যারা অতি লজ্জিত

নির্দিষ্ট অঞ্চলের প্রতিনিধিত্ব করে এমন কিছু লিখতে অনাগ্রহবোধ করি। কারণ আমি বাংলাদেশের নাগরিক। চৌষট্টিটি জেলা নিয়ে আমার মাতৃভূমি। সে হিসেবে আমি শুধু ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সন্তান না। চৌষট্টিটি জেলা তথা এই বাংলা মায়ের সন্তান আমি।

একটি ঝগড়াকে উপলক্ষ করে দুই দিন যাবৎ ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশেষ করে নবীনগরে জন্মগ্রহণকারী অনেকে ভীষণ লজ্জিত। লজ্জায় ওনারা ফেসবুকে মুখ লুকাচ্ছেন। কেউ বর্বরোচিত ঘটনার জন্য জড়িতদের ফাসিঁ দাবি করছেন, কেউ বলছেন ক্রস ফায়ারের কথা।আবার কেউ বলছেন, যারা এই কান্ড ঘটিয়েছে তাদেরও পা কেটে ফেলতে। যত প্রকার হা হুতাশ, যত রকমের প্রতিবাদ আমরা করছি সবই ভার্চুয়াল জগতে। আমার ধারণা অনলাইন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আছে বলেই আমরা প্রতিবাদ করতে পারছি এবং করছি। ভার্চুয়াল এবং বাস্তব পৃথিবী সম্পূর্ণ আলাদা। ভার্চুয়াল জগতে আপনি যাদের বিরুদ্ধে গলা ফাটাচ্ছেন বাস্তব ক্ষেত্রে আপনি আপনার গ্রামের বা অঞ্চলের কোন ঝামেলার জন্য ওনাদের কাছেই যেতে হবে বিচার চাইতে। অর্থাৎ মানুষের পা কেটে হাতে নিয়ে উল্লাসকারীদের যারা নিয়ন্ত্রণ করেন গ্রাম গঞ্জের বিচার শালিশগুলোও ওনারাই নিয়ন্ত্রণ করেন।


অতি লজ্জায় যারা ঘোমটায় মুখ ঢেকেছেন, আপনারা ঘোমটা থেকে মুখটা বের করে একটু আয়নার সামনে দাড়াঁন দয়া করে। এবার দেখার চেষ্টা করুন মানুষের পা কেটে হাতে নিয়ে উল্লাস করার প্রেক্ষাপটে আপনার অবস্থান কোথায়। আপনি যে আপনার এলাকায় মাথা উঁচু করে চলাফেরা করেন, উপজেলা শহরে বুক ফুলিয়ে হাঁটেন এর পিছনের শক্তির উৎসটা কি? হয়তো দেখবেন মানুষের পা কেটে হাতে নিয়ে উল্লাস করার ক্ষমতা আপনার আছে অথবা যাদের এই ক্ষমতা আছে তাদেরকে যথেষ্ট পরিমান তৈল মর্দন করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। এই দুই দলে না থাকলে আপনি ‘ন মানুষ’ হয়ে বেঁচে আছেন আপনার গ্রামে, আপনার অঞ্চলে। আপনি প্রায় মৃত হয়ে বেঁচে আছেন আপনার এলাকায়। আপনি ওখানে বসবাস করুন আর নাই করুন আপনার জন্মস্থানের জন্য আপনি নিছক অতিথি ছাড়া কিছুই না। এ বড় জটিল বৃত্ত। দু’ একজনের ফাঁসি চেয়ে এই বৃত্ত ভেঙে ফেলা বা বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব না।
আয়নায় নিজেকে প্রশ্ন করুন ভার্চুয়াল জগতে আপনি যাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছেন বাস্তবক্ষেত্রে এই ধরনের মানুষের সাথে আপনার আচরণ কেমন? আপনি যাদের সমীহ করে চলেন ওনাদের সমীহ করার পিছনের কারনটা কি? নিজেকে আবার প্রশ্ন করুন, বারবার প্রশ্ন করুন, বর্বরোচিত এবং পৈশাচিক উল্লাসে আপনার অবস্থান কোথায়?

পরিশিষ্টঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়া শুনলেই যারা নাক সিটকান, উক্ত কর্মটি করার সাথে সাথে নিজ জেলার নাম উল্লেখ করবেন এবং আমলনামা ঘেটে দেখার চেষ্টা করবেন। কোন কিছু না ভেবেই যারা একটি বিশেষ অঞ্চল বা জেলাকে নিয়ে কটাক্ষ করে কথা বলেন আপনাদের কাছে প্রশ্নঃঃ- মানুষের প্রতি মানুষের এই যে পৈশাচিক আচরণ এগুলো থেকে কোন এলাকা পুরোপুরি মুক্ত? দেশের সর্বোচ্চ শিক্ষাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কি এই ধরনের নৃশংসতা থেকে মুক্ত? বুয়েটের মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আবরারকে পাশবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে মৃত্যুবরণ করতে হলো! আবরার হত্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কয়টা ছেলে জড়িত ছিল? বিশ্বজিৎকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হলো। বিশ্বজিৎ হত্যাকাণ্ডে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কয়টা ছেলে জড়িত ছিল? রিফাত হত্যাকান্ডে? নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যায়? সুতরাং কোন এলাকাকে কটাক্ষ না করে পুরো দেশটা আমাদের এভাবে চিন্তা করি। কারন বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র নির্যাতন এবং প্রতিপক্ষের পা কেটে বিজয়োল্লাস বিষয়গুলো একই সূত্রে গাঁথা। দুই জায়গাতেই আধিপত্য বিস্তার এবং ক্ষমতার পৈশাচিক প্রকাশের মহড়া। একটি গ্রাম্য আদিম বর্বর ভার্সন আপরটি আধুনিক তথাকথিত শিক্ষিত পৈশাচিক ভার্সন।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

ওস্তাদের মাইর শেষ রাইতে

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 4578 বার

নবীনগরের এপ্রিল ট্রাজেডি ১৯৭১

২৯ এপ্রিল ২০১৭ | 2612 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০