শিরোনাম

প্রচ্ছদ জেলা সংবাদ, শিরোনাম, স্লাইডার

কবি আবদুল কাদির এর ৩২তম মৃত্যু বার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলী

মোঃ নিয়াজুল হক কাজল | মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর ২০১৬ | পড়া হয়েছে 1963 বার

কবি আবদুল কাদির এর ৩২তম মৃত্যু বার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলী

তিনি ১৯০৬ সালে আশুগঞ্জ উপজেলার আড়াইসিদা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯৮৪ সালের ১৯ ডিসেম্বর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

শৈশবে গ্রামের মক্তবে পরাশুনা করে ব্রাহ্মণবাড়য়িা অন্নদা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৯২৩ সালে অন্নদা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে মেট্রিক পাশ করে ঢাকা কলেজে ভর্তি হন। ১৯২৫ সালে আই,এ,পাশ করে ঢাকা বিশ্বদ্যিালয়ে বি,এ, ক্লাশে ভর্তি হন।


কলেজ ম্যাগাজিনে তাঁর প্রথম কবিতা ’মুক্তি’ প্রকাশিত হয়।তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থগুলো হচ্ছে-’দিলরুবা’(১৯৩৩)ও’উত্তর বসন্ত’(১৯৬৭),’ছন্দ সমীক্ষণ’(১৯৭৯),’লুৎফুর রহমান রচনাবলী’(১৯৭২) ’বাংলা সনেট’(১৯৭৪), ’মুসলীম সাহিত্যের সেরা গল্প’, ’বাংলা ছন্দের ইতিবৃত্ত’(১৯৭৬), ’কাজী আবদুল ওদুদ’(১৯৭৬), ’যুগ কবি নজরুল’(১৯৮৬), ’সনেট শতক’(১৯৭৪),’কাব্য মালঞ্চ’, ’নজরুল রচনাবলী’(৫খন্ড১৯৬৬-৮৪)’নজরুল পরিচিতি’(১৯৫৯),নজরুল রচনা সম্ভার’(১৯৬১), ’রোকেয়া রচনাবলী’(১৯৭৩), ’সিরাজী রচনাবলী’(১৯৬৮), ’ইয়াকুব আলী চৌধুরী রচনাবলী’(১৯৬৩), ’আবুল হোসেন রচনাবলী’(১৯৬৮), ’কাজী এমদাদুল হক রচনাবলী’(১৯৬৮) ড. মুহাম্মদ এনামুল হক স্মারক বক্তৃতামালা’(১৯৮৪), ’তুরুষ্কের ইতিহাস’ ২য় খন্ড(১৯৩৮-৩৯) প্রভৃতি।

১৯২৬ সালে তাঁর উদ্যোগে ঢাকা বিশ্বদ্যিালয়ে মুসলীম সাহিত্য সমাজ প্রতিষ্ঠিত হয়। তাঁর সম্পাদনায় প্রকাশিত সাহিত্য পত্রিকা ’শিখা’(১৯২৭), ’জয়ন্তী’ তৎকালীন সময়ে যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করে। ১৯২৯ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ালেখা শেষ না করেই জীবিকার প্রয়োজনে কলকাতা চলে যান এবং সেখানে মাসিক ’সওগাত’ পত্রিকার সম্পাদকীয় বিভাগে যোগ দেন। ১৯৩০ সালে তিনি কলকাতা কর্পোরেশন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসাবে যোগ দেন।১৯৪৬ সালে তিনি ভারত সরকারের প্রচার বিভাগে যোগ দিয়ে সাপ্তাহিক মুখপত্র ’বাংলার কথা’, ’মেহাম্মদী’, ’পয়গম’ পত্র-পকিার বিভিন্ন বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া কলকাতায় তিনি সাপ্তাহিক ’নব শক্তি’, ’যুগান্তর’, ’দৈনিক নবযুগ’, প্রভৃতি পত্রিকায় কাজ করেন।

১৯৩৫ সালে তিনি কমরেড মোজাফ্ফর আহমেদের একমাত্র কন্যা আফিয়া খাতুনের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

১৯৫২ সালে তিনি ঢাকা এসে ’মাহে নও’পত্রিকার সম্পাদনা করেন। ১৯৬৪ সালে তিনি কেন্দ্রীয় বাংলা উন্নয়ন বোর্ডের প্রকাশনা কর্মকর্তা হিসাবে যোগ দিয়ে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন । বাংলা সাহিত্যে তাঁর অসামান্য অবদানের জন্য তিনি আদমজী সাহিত্য পুরুষ্কার(১৯৬৭), বাংলা একাডেমী পুরুষ্কার(১৯৬৩), একুশে পদক(১৯৭৬), নাসিরউদ্দিন স্বর্ণপদক(১৯৭৭), কুমিল্লা ফাউন্ডেশন স্বর্ণ পদক(১৯৭৭)নজরুল একাডেমী স্বর্ণপদক(১৯৭৭), মুক্ত ধারা পুরুষ্কার সহ বিভিন্ন পদক লাভ করেন।


গ্রন্থনাঃ মোঃ নিয়াজুল হক কাজল,সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও সাংবাদিক। লেখক ও গবেষক।নবীনগর,ব্রাহ্মণবাড়িয়া।০১৭৫৩৫৩১১৫৩।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আমরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সন্তান

০৯ মার্চ ২০১৭ | 8219 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১