শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

গ্রাহকের আস্থা বেড়েছে-প্রতি মাসে দেড় হাজার নতুন সংযোগ পাচ্ছে সাধারণ মানুষ

মিঠু সূত্রধর পলাশ | বৃহস্পতিবার, ০৯ মার্চ ২০১৭ | পড়া হয়েছে 2705 বার

গ্রাহকের আস্থা বেড়েছে-প্রতি মাসে দেড় হাজার নতুন সংযোগ পাচ্ছে সাধারণ মানুষ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার  নবীনগরে গত এক বছরে ১৮ হাজার নতুন গ্রাহকের মাঝে বিদ্যুত সংযোগ দেয়া হয়েছে। ওই হিসেবে প্রতি মাসে দেড় হাজার নতুন মিটার স্থাপিত হচ্ছে এ অফিসের আওতাধিন এলাকাগুলোতে। স্থানীয় পল্লি বিদ্যুত জোনাল অফিস শাখা সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন এলাকার গ্রাহকের মাঝে  প্রতি দিন ৫০টিরও বেশি বিদ্যুত সংযোগের মাধ্যমে নতুন মিটার দেয়া হচ্ছে।

পৌর এলাকার নারায়নপুরে অবস্থিত পল্লি বিদ্যুত সমিতির এ শাখায় সরজমিন গিয়ে দেখা গেছে, নতুন সংযোগের আবেদন জমা দিতে গ্রাহকের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। এ অফিসের একজন স্টাফ জানালেন এ দৃশ্য নাকি প্রতিদিন চোখে পড়ে। ভীর থাকলেও সেখানকার পরিবেশ ছিল বেশ শান্ত। গ্রাহকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, আগে তারা দালালের মাধমে টাকা দিয়েও বছরের পর বছর ঘুরে মিটারের দেখা পে্তেন না। এখন আর ওই পরিবেশ নেই। তারা এখন অনলাইনের মাধ্যমে নিজেরাই আবেদন ফরম জমা দিচ্ছন। কোন অভিযোগ থাকলে সরাসরি এ শাখার ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজারের (ডিজিএম) সাথে কথা বলছেন। ডিজিএম গ্রাহকগণের অভিযোগ শুনে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। গ্রাহকদের নিরাপত্তার সার্থে অফিস এলাকায় বসানো হয়েছে সিসি ক্যামেরা।


গত সোমবার (৬/৩) সকালের দৃশ্যে দেখা গেছে, ডিজিএম এর সাথে উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের মরিয়ম বেগম ও জিনোদপুর ইউনিয়নের প্রতিবন্ধী মিজানুর রহমান তাদের সমস্যা নিয়ে অফিস কক্ষে সরাসরি কথা বলছেন।
পল্লী বিদ্যুৎ গ্রাহক শামিম মিয়ার সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি গত ২০১৫ সালের দিকে নবীনগর পৌর এলাকার পদ্ম পাড়ায় তার নিজ বাড়িতে ১টি বিদ্যুৎতিক মিটার সংযোগ স্থাপন করতে তার খরচ হয়েছিল প্রায় পনের হাজার টাকা। তিনি জানান, মিটারের জন্য পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে সরাসরি আবেদনের কাগজ পত্র জমা দেওয়া বা অফিসের কারো সাথে কথাই বলা যেত না সে সময়। মিটার পাওয়ার এক মাত্র মাধ্যম ছিল এলাকার কতিপয় কিছু দালালরা। তাদের কাছে গ্রাহকরা জেন অনেকটাই অসহায়। বাধ্য হয়ে বেশি টাকা দিয়ে মিটার পাওয়ার আশায় তাদের কাছে যেতেন আমাদের মতো সাধারণ মানুষ।
এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির নবীনগর জোনাল অফিসে’র ডিজিএম আহাম্মেদ শাহ আল জাবেদ বলেন, পূর্বে অনেক ঘটনাই ঘটেছে এখানে, সেটা আপনারা সবাই জানেন। আশা করি বর্তমানে এসব সমস্যা কোথাউ খুজে পাবেন না। নবীনগর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসকে দালাল মুক্ত করে গ্রাহক সেবায় যোক্ত করেছি। প্রতিদিন অনলাইনে মিটারের আবেদন করছে সাধারন মানুষ জন। প্রতি মাসে দেড় হাজারেরও বেশি মিটার সংযোগ দিচ্ছি উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। আমাদের কর্মিরাও অনেক পরিশ্রম করছে। আশা করি উপজেলার সাধারণ মানুষের মাঝে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিত করতে পারবো।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25894 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০