শিরোনাম

প্রচ্ছদ জাতীয়, জেলা সংবাদ, শিরোনাম, স্লাইডার

তিন লাখ মুসল্লি বরণে প্রস্তুত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ইজতেমার মাঠ

আমিনুল ইসলাম | বুধবার, ০৩ জানুয়ারি ২০১৮ | পড়া হয়েছে 1496 বার

তিন লাখ মুসল্লি বরণে প্রস্তুত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ইজতেমার মাঠ

তিন লাখ মুসল্লিকে বরণ করে নিতে প্রস্তুত করা হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর উপজেলার শালগাঁও কালিসীমা স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠ। আম বয়ানের মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার কালিসীমা গ্রামে বৃহস্পতিবার (৪ জানুয়ারি) থেকে ৩দিন ব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার একাংশ শুরু হবে।

৬ই জানুয়ারি শনিবার দুপুরে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে তিনদিন ব্যাপী এই জমায়েত। প্রতি দু’বছর অন্তর অন্তর প্রতিটি জেলায় এই জমায়েত অনুষ্ঠিত হয়।


ইজতেমা ময়দানকে পাঁচটি সেক্টরে ভাগ করে জল ও স্থলপথে নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তার দায়িত্বে ৫শ ৭৫ জন পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবে। ময়দান পাশে থাকবে অবজারভেশন পোস্ট। রাতে এ পোস্টগুলোতে নাইটভিশন বাইনোকুলার ব্যবহার করা হবে। নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আমর্ড পুলিশ, র‌্যাব, নৌ পুলিশ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করে যাবে। মুসল্লিদের জরুরি চিকিৎসাসেবা প্রদানের জন্য র‌্যাবের অ্যাম্বুলেন্সসহ মেডিকেল টিম থাকবে সেখানে।

ইজতেমা উপলক্ষে শালগাঁও কালিসীমা স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠ, ঈদগাহ ও আশপাশের প্রায় ২০ একর জায়গা জুড়ে ইজতেমার জন্য নির্মাণ করা হয়েছে বিশাল প্যান্ডেল। ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। ইজতেমায় আগত মুসিল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে সড়কের সংস্কার ছাড়াও পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি, বিদ্যুৎ ও নিরাপত্তার জন্য সিসি ক্যামেরাসহ পর্যাপ্ত পরিমাণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্যান্ডেলের অভ্যন্তরে প্রায় অর্ধশতাধিক মাইকের হর্ন লাগানো হয়েছে। এক সাথে কয়েক হাজার মানুষের টয়লেট, গোসল এবং অজুর ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

এলাকাবাসীও প্রস্তুত ইজতেমার যোগ দিতে আসা মুসল্লিদেরকে বরণ করে নিতে। এবারের ইজতেমায় দেশী বিদেশী অতিথিসহ প্রায় ৩ লক্ষাধিক মুসল্লির আগমন ঘটবে এই মাঠে। এছাড়া মাঠের নিরাপত্তায় দায়িত্ব পালন করবে প্রায় ৭ শতাধিক পুলিশ। ইজতেমা ময়দানকে পাঁচটি সেক্টরে ভাগ করে জল ও স্থলপথে নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তার দায়িত্বে ৫শ ৭৫ জন পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবে। ময়দান পাশে থাকবে অবজারভেশন পোস্ট। রাতে এ পোস্টগুলোতে নাইটভিশন বাইনোকুলার ব্যবহার করা হবে। ইজতেমায় অতিরিক্ত নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আমর্ড পুলিশ, র‌্যাব, নৌ পুলিশ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করে যাবে। মুসল্লিদের জরুরি চিকিৎসাসেবা প্রদানের জন্য র‌্যাবের অ্যাম্বুলেন্সসহ মেডিকেল টিম থাকবে সেখানে।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসাইন জানান, ইজতেমা এলাকার আশপাশে ছিনতাই, পকেটমার, মলমপার্টি এবং বিভিন্ন দুর্ঘটনা এড়াতে পোশাকে ও সাদা পোশাকে বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। জনসাধারণের স্বাভাবিক চলাচলের জন্য পৈরতলা বাসস্ট্যান্ড হতে কালীসীমা রোডে কোনো গাড়ি প্রবেশ ও পার্কিং করা যাবে না। এ বিষয়ে পর্যাপ্ত ট্রাফিক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা জেলা ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে।

জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান জানান, ইজতেমা সফল করার জন্য যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে মুসল্লিদের জরুরি চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য র‌্যাবের অ্যাম্বুলেন্সসহ মেডিকেল টিম থাকবে সেখানে। ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে সড়কের সংস্কার ছাড়াও পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি, বিদ্যুৎ ও নিরাপত্তার জন্য সিসি ক্যামেরাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। সকলের সহযোগীতায় খুব ভালভাবে ইজতেমা সম্পন্ন হবে।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

ভালো নেই : আকবর আলি খান

০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ | 6910 বার

স্বর্ণের দাম কমেছে

২৯ মে ২০১৬ | 3604 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১