শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

মামলা প্রত্যাহার সহ ব্যবসায়ীর মুক্তির দাবীতে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ

নবীনগরের বাউচাইলে প্রতিপক্ষের মিথ্যা মামলায় ব্যবসায়ী জেলে

ডেস্ক রিপোর্ট | রবিবার, ২১ নভেম্বর ২০২১ | পড়া হয়েছে 160 বার

নবীনগরের বাউচাইলে প্রতিপক্ষের মিথ্যা মামলায় ব্যবসায়ী জেলে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার রতনপুর ইউনিয়নের বাউচাইল গ্রামের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হোসেন হাবলু গ্রেফতার হওয়ায় প্রতিপক্ষের আনন্দ উল্লাসের ঘটনায় এলাকাবাসী নিন্দা জানিয়ে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার সহ হাবলুর মুক্তির দাবী তুলেন।

জানা গেছে, মোহাম্মদ হোসেন হাবলুর সাথে একই এলাকার মুবারক হোসেন সুমন ও জসিম মিয়ার দীর্ঘদিনের বিরোধ ছিলো। ওই বিরোধের জেরে হাবলু মিয়াকে ফাঁসাতে গত ১৫ মে ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে এনে নবীনগর থানায় তদন্ত পুর্বক নির্দেশনা দেন।
ওই মামলার বাদী মোবারক হোসেন সুমন প্রতিপক্ষ মোহাম্মদ হোসেন হাবলুকে সামাজিক ভাবে হেয় করতে এই মিথ্যা অভিযোগে মামলায় ফাসিয়েছেন বলে অভিযোগ তুলেন হাবলুর মিয়ার পরিবারের সদস্যরা।


হাবলু মিয়ার স্ত্রী ফৌজিয়া বেগম জানায়, গত ৫ মাস আগে দায়ের করা মিথ্যা মামলায় হাজিরা দিতে গেলে
গত ১৭ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নির্দেশে কারাগারে পাঠানো হয়।
এদিকে হাবলু মিয়ার গ্রেফতারের খবরে এলাকায় আনন্দ উল্লাস ও মিষ্টিমুখ করেছে প্রতিপক্ষরা।

আজ বিকালে নিন্দনীয় এই ঘটনার প্রতিবাদে এলাকাবাসী নিন্দা জানিয়ে বিক্ষোভ করেছে। স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিক ওই এলাকায় গিয়ে এলাকাবাসী ও হাবলু মিয়ার পরিবারের লোকজনের সাথে কথা বললে তারা জানান, মোবারক মিয়া ও জসিম মিয়ার ইন্দনে হাবলু মিয়ার বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামিলীগ সভাপতি ও বাউচাইল প্রাইমারী স্কুলের সভাপতি হাবলু মিয়া  এলাকায় একজন গ্রহনযোগ্য ব্যক্তি হিসাবে পরিচিত।  তিনি স্থানীয় জামে মসজিদ ও কবরস্থানের  সভাপতির দায়িত্বে আছেন দীর্ঘদিন।
এলাকার কয়েকজন প্রবীন ব্যক্তি হাবলু মিয়ার মতো লোককে জেলে পাঠিয়ে প্রতিপক্ষরা ভালো থাকবেনা বলে জানান। হামদু মিয়া নামে এক বৃদ্ধ জানান, হাবলু মিয়াকে এলাকায় কোন প্রশ্নবিদ্ধ কাজে কোনদিনই দেখিনি। তার দুই ছেলে প্রবাসে থাকে,প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করে ওরা। এতোকিছুর পরেও তার বিরুদ্ধে আনা চাঁদাবাজির মামলা একেবারেই হাস্যকর।
মিথ্যা মামলায় গোলাম কিবরিয়া নামে অভিযুক্ত আরেক ব্যক্তি এই প্রতিবেদককে জানায়, মোহাম্মদ হোসেন হাবলু মিয়া এলাকার একজন সম্মানীয় মানুষ। এলাকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে উনার সহযোগিতা ও এলাকার দুস্থ অসহায়দের জন্য তিনি বিভিন্ন সময়ে সহযোগিতা করে আসছেন। এলাকার বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সভাপতিও তিনি।

এলাকাবাসী ও হাবলু মিয়ার পরিবারের লোকজন উক্ত মামলাটির সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে নিরপরাধ ব্যক্তিদের হয়রানি না করার দাবী তুলেন।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 26368 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১