শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

নবীনগরের বড়িকান্দি ইউনিয়নের মেঘনা পাড়ের বাসিন্দাদের দীর্ঘদিনের দাবী বাস্তবায়ন হচ্ছে অচিরেই

শাওন সরকার | সোমবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | পড়া হয়েছে 799 বার

নবীনগরের বড়িকান্দি ইউনিয়নের মেঘনা পাড়ের বাসিন্দাদের দীর্ঘদিনের দাবী বাস্তবায়ন হচ্ছে অচিরেই

নবীনগর উপজেলার উত্তর সীমান্তবর্তী বড়িকান্দি ইউনিয়নের সোনাবালুয়া, মুক্তারামপুর, নুরজাহানপুর, ধরাভাঙ্গা, দুলাইগঞ্জ, কোলাসিং গ্রাম রয়েছে। নদীর তীরবর্তী এসব গ্রামগুলো ভাঙ্গনের ফলে গৃহহারা হচ্ছেন অনেকেই।আবার মানচিত্র থেকেও দুইটি গ্রাম নদীতে তলিয়ে যাচ্ছে।

মেঘনা পাড়ের বাসিন্দাদের দীর্ঘদিনের প্রানের দাবীর প্রেক্ষিতে যখন নিজেদের ভিটে মাটি রক্ষায় নদীর পাড়ে দাড়িয়ে বাধ নির্মানের লক্ষে মানববন্ধন করে  তখনি সেখানকার অসহায় মানুষগুলোর অসহায়ত্ব টের পায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা ও গণমাধ্যমকর্মীরা।


নবীনগর উপজেলার বড়িকান্দি ইউনিয়নের মেঘনা তীরবর্তী গ্রামগুলোতে ব্যাপক ভাঙ্গনের কবলে বহু পরিবার ভিটেমাটি সহ সর্বস্ব হারিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে পথে পথে মানবেতর জীবন কাটায়।

এছাড়াও গত দুই দশকে ভাঙ্গনের মাত্রা এতটাই বেড়েছিল যে ওই ইউনিয়নের প্রায় চার/পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে গ্রামবাসীর বাড়িঘর ও ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়।

received_1868499026564125

এদিকে ইউনিয়নগুলোর মানচিত্রে দুটি গ্রাম থাকলে বাস্তবে গুটা কয়েকটা পরিবার ছাড়া এখন আর গ্রামের কোনো অস্তিত্ব চোখে পড়েনা। রাক্ষুসে মেঘনার ভয়াল গর্জন আর ঢেউয়ের তোরে  সবকিছুই গ্রাস করে নিয়েছে।

অসহায় মানুষগুলোর অনেকেই আপনজনদের চোখেমুখে সব হারানোর ব্যাথায় অন্ধকার ভবিষ্যৎ দেখতেন প্রতিনিয়ত ।

received_237707386916799

যে কয়েকটি পরিবার নদীর তীরবর্তী স্থানে বাস করছেন এরা ঠিকই আন্দাজ করেছিল অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ তাদের। তারা এও ভেবেছিল দ্রুত কোনো কার্যকরী ব্যবস্থা না নিলে সামনের বর্ষা মৌসুমে সবকটি বাড়িঘর নদীগর্ভে হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

গত ১লা সেপ্টেম্বর সলিমগঞ্জ ইউনিয়নের বাসিন্দা কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের উপদেষ্টা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য এবাদুল করিম বুলবুলের নেতৃত্বে  বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মাহফুজুর রহমান, সহকারী পরিচালক এ এম আনোয়ার হোসেন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করতে আসেন।

received_982792821927774

তাদের আগমনের খবর পেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামের শিশুসহ সকল বয়সের নারী-পুরুষ ব্যানার নিয়ে মেঘনার তীরে অবস্থিত সোনাবালুয়া গ্রামের অবস্থান করেন।

ভয়াবহ ভাঙ্গনের ফলে গ্রামের পর গ্রাম নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার চিত্র সরজমিন পরিদর্শন শেষে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাগণ সেময়ে ক্ষতিগ্রস্তদের আশ্বাস দিয়েছিলেন বাধ নির্মানের প্রকল্প বাস্তবায়নের।

অবশেষে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালকের পরিদর্শনের দুই মাসের মাথায় বাধ নির্মাণের লক্ষে ৮০ কোটি টাকার বরাদ্দ ঘোষনা করায় ভাঙ্গনকবলীত এলাকাগুলোতে আনন্দের ঢেউ বইছে।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25653 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০