শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

ট্রান্সফর্মারটি স্থাপনের ফলে প্রায় বিশ হাজারের মত গ্রাহকের বিদ্যুতের সমস্যা লাঘব হবে

নবীনগরের ভোলাচং সাবস্টেশনে যোগ হল আরো একটি ৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ট্রান্সফর্মার

ডেস্ক রিপোর্ট | বুধবার, ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ | পড়া হয়েছে 5846 বার

নবীনগরের ভোলাচং সাবস্টেশনে যোগ হল আরো একটি ৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ট্রান্সফর্মার

বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনে যোগ হল আরো ৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। এটি স্থাপনের ফলে নবীনগরে বিদ্যুৎ চাহিদা অনেকটা পুরন করা যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার (১৭/১) পৌর এলাকার ভোলাচং সাবস্টেশনে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রায় ২ কোটি টাকা ব্যায়ে আরো একটি ৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ট্রান্সফর্মার স্থাপন করা হয়। যা আগামী সপ্তাহের মধ্যে চালু করা হবে। এটি চালু হলে এখানকার প্রায় বিশ হাজারের মত গ্রাহকের বিদ্যুতের সমস্যা লাঘব হবে।
এর আগে ওই সাবস্টেশনে ১৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ধারণক্ষমতা ছিল, এখন ৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হওয়া্র মাধ্যমে ২০ মেগাওয়াটে উন্নিতকরন করা হয়েছে। এছাড়াও একই এলাকার আওতায় থোল্লাকান্দি সাব স্টেশনে রয়েছে ১০ মেগাওয়াট ধারণক্ষমতা। ওই হিসাবে নবীনগরবাসী এখন ৩০ মেগাওয়াটের আওতায় রয়েছে।
এটি স্থাপনের ফলে অতিরিক্ত বিশ হাজারের মত  গ্রাহকের বিদ্যুৎ সুবিধা দেয়া যাবে ও লোডশেডিং কিছুটা হ্রাস পাবে বলে জানালেন স্থানীয় পল্লি বিদ্যুৎ অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) আহমদ সাহ আল জাবের।
এছাড়াও পল্লিবিদ্যুত এলাকা শাখার অধিনে তিন নং ফিডার ওভারলোড থাকার কারনে প্রায়ই লোডশেডিং দেয়া হতো। যে কারনে অনেক গ্রাহকের মাঝে এ নিয়ে ক্ষোভের সঞ্চার হতো। এ সমস্যা নিরসনেও  ডবল সার্কিট লাইন বসানো হচ্ছে , যে পক্রিয়া  চলমান রয়েছে।
উল্যেখ্য, ডবল সার্কিট লাইন বসানোর মাধ্যমে যেসব ফিডারে বেশি লাইন রয়েছে, সেগুলোকে ভাগ করে আলাদা আলাদা ফিডার বৃদ্ধি করা হচ্ছে।
স্থানীয় পল্লিবিদ্যুত জোনাল অফিসের (ডিজিএম) আহমদ সাহ আল জাবের ‘নবীনগর টুয়েন্টি ফোর ডটকম’ এর সাথে একান্ত আলাপচারিতায় আরো জানান, উপজেলায় মোট গ্রাহক সংখ্যা রয়েছে  ৬১,০০০ এর মত। এছাড়াও প্রতিমাসে দেড় হাজারের মত নতুন সংযোগ দেয়া হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে এ সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।
কথা প্রসঙ্গে ডিজিএম আরো জানান, জেলার বাঞ্ছারামপুর হয়ে তিতাস গ্রীড লাইন চালু হলে ওই গ্রীডের মাধ্যমে আমরা এই এলাকার সকলের বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে সক্ষম হব।

বর্তমানে পল্লিবিদ্যুত অফিস এলাকার চিত্রঃ-
বর্তমান সময়ে অনলাইনের মাধ্যমে  মিটারের আবেদন পক্রিয়াটি গ্রাহকের মাঝে বেশ স্বস্তি নিয়ে এসেছে। প্রতিদিনই পৌরবাসী সহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে মানুষজন আসছেন নতুন সংযোগ নিতে।  আবেদনকারীদের উপস্থিতিতে পল্লি বিদ্যুৎ অফিস এলাকা থাকে জনসমাগম ।
গ্রাহকদের অনেকেই আগে মিটার পেতে দালাল চক্রের খপ্পরে পরে প্রতারিত হয়েছেন এর নজীর রয়েছে অনেক।  এখন পরিবেশ উল্টো। সংশ্লীষ্ঠদের সজাগ দৃষ্টির ফলে ওই এলাকা এখন দালালমুক্ত। দালাল চিহ্নিত করতে বহু আগে অফিসের চারপাশে বসানো হয়েছে কয়েকটি ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা। এগুলো স্থাপনের ফলে পল্লি বিদ্যুৎ প্রাঙ্গন শতভাগ দালাল মুক্ত না হলেও এদের দৌরাত্ম এখন আর চোখে পরেনা।
শেখ হাসিনার সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ভিশন টুয়েন্টি টুয়েন্টি বাস্তবায়ন করতে বিদ্যুতায়নের নতুন সংযোগ দিয়ে শতভাগ বিদ্যুতের আলো পৌছে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন আহমদ সাহ আল জাবের।


Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25656 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১