শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

নবীনগরে আলোচিত ‘পা কাটা’ মোবারক হত্যা মামলায় কবির চেয়ারম্যান গ্রেফতার

ডেস্ক রিপোর্ট | সোমবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ | পড়া হয়েছে 317 বার

নবীনগরে আলোচিত ‘পা কাটা’ মোবারক হত্যা মামলায় কবির চেয়ারম্যান গ্রেফতার

ব্রাহ্মনবাড়ীয়ার নবীনগর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের থানাকান্দি গ্রামের আলোচিত পা কাটা মোবারক হত্যা মামলার প্রধান আসামী বীরগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী কবির আহমেদকে আজ রবিবার সন্ধ্যায় র‍্যাব – ৯ অভিযান চালিয়ে শ্রীমঙ্গলের সিন্দুরখান এলাকা হতে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারের পর কবির চেয়ারম্যান

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নবীনগর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো. রুহুল আমিন।


জানা যায়, চলতি বছরের ১২ এপ্রিল কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের থানাকান্দি গ্রামে বিবদমান দুই গ্রুপের সংঘটিত রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে প্রায় অর্ধশত লোক আহত ছাড়াও মোবারক মিয়া (৪৫) নামে এক ব্যক্তির পা কেটে বিচ্ছিন্ন করে পৈশাচিকভাবে জয় বাংলা শ্লোগানে উল্লাস করে প্রতিপক্ষের লোকজন। এই ঘটনাটি সেসময়ে সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্ঠি করে। গুরুতর আহত মোবারক মিয়া ঘটনার চার দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৫ এপ্রিল মারা যান।

এ ঘটনার ছয় দিন পর অর্থাত গত ১৭ এপ্রিল রাতে নিহতের চাচাতো ভাই চাঁন মিয়া বাদী হয়ে নবীনগর থানায় ১৫২ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আলোচিত এই হত্যা মামলায় পার্শ্ববর্তী বীরগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির আহমেদকে ‘প্রধান আসামি’ করা হয়। এছাড়াও দুই গ্রুপের একটি গ্রুপের দলনেতা কাউছার মোল্লাকে ২ নম্বর আসামি করা হয়। যিনি এ মামলায় গ্রেফতার হয়ে হাজতে আছেন। উক্ত মামলায় স্থানীয় একটি প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবু কাউছারকে ৩ নম্বর আসামি দেখিয়ে অজ্ঞাতনাম আরো ১৫০ জনকে মামলায় আসামি দেখানো হয়।

উল্লেখ্য, গ্রাম্য আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বছরের পর বছর ঘটে যাওয়া এসব সংঘর্ষের ঘটনার মুল নেতৃত্বে থাকতেন কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান (সরকার বাড়ির গুষ্টি) ও আজইরা বাড়ীর গুষ্টির নেতৃত্ব দিতেন এলাকার সর্দার কাউছার মোল্লা।
খোজ নিয়ে জানা যায়,তাদের নেতৃত্বে বিভিন্ন সময়ে ঘটে যাওয়া সৃষ্ঠ সংঘর্ষে এলাকাকায় ৫টি খুনের ঘটনা ঘটে। সেসব ঘটনায় অসংখ্য লোক পঙ্গুত্ব বরণ করে। সব শেষে গত ১২ এপ্রিল দফায় দফায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনায় মোবারক মিয়ার প্রাণহানি সহ প্রায় অর্ধশত লোক আহত হন।

তবে পাঁচ মাস আগে করা এ মামলায় বীরগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী কবির হোসেনকে প্রধান আসামী করায় বিভিন্ন মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। চেয়ারম্যানের পরিবার থেকে জানানো হয় প্রতিহিংসা বশত হাজী কবিরকে ফাঁসানো হয়েছে। পরিবার থেকে আরো বলা হয়, ঘটনার সময় স্ব-শরিরে উপস্থিত না থেকেও কিভাবে তাকে প্রধান আসামী করা হয়েছে। তারা এও বলেন,  বর্বর এ ঘটনায় জড়িত ক’জনের নাম ঘটনার পরপরই প্রকাশ করেন মোবারক। যা ফেসবুকে অনেকেই অবগত। মোবারকের দেয়া জবানবন্দিতে কবিরের নাম ছিলোনা।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25534 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০