শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

নবীনগরে উপজেলা প্রশাসন সহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের বর্ষবরণ উৎযাপন

ডেস্ক রিপোর্ট | সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৯ | পড়া হয়েছে 589 বার

নবীনগরে উপজেলা প্রশাসন সহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের বর্ষবরণ উৎযাপন

১লা বৈশাখ ১৪২৬।  নতুন বছরকে বরণ করতে নানান রীতিনীতি যেন এ দেশের মানুষের কাছে প্রাচীন ঐতিহ্য  বহন করে। দেশজুড়ে ব্যাপক কর্মসুচির মধ্য দিয়েই পালন করা হয় নববর্ষকে। অতীতের সব গ্লানি পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে সারাদেশ  এই উৎসবে  মেতে উঠে।

সারাদেশের মত নবীনগরেও উপজেলা প্রশাসন ও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে বর্ষবরণ উৎযাপন করা হয়। উপজেলা প্রশাসনের ব্যানারে সকাল ৯টায় এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা বর্ষবরণের বিভিন্ন উপকরণে সজ্জিত হয়ে শোভাযাত্রায় অংশ নেন। এ সময় ঢাক-ঢোলে সরগরম হয়ে উঠে আদালত প্রাঙ্গনের বটতলা, আমতলা, কড়ইতলা সহ ইচ্ছাময়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও নবীনগর মহিলা কলেজ প্রাঙ্গন। এছাড়াও বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ নবীনগর শাখার উদ্যোগে বর্ণাড্য শোভাযাত্রা পৌর শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে।


বর্ষবরণে জাগরণী শিল্পী গোষ্ঠি, সপ্তক, কঁচিকাঁচার মেলা ও শিল্পাঙ্গানের উদ্যোগে গান ও নাচ পরিবেশন করেন স্থানীয় শিল্পীরা। তাদের পাশাপাশি চিত্র শিল্পীরাও তাদের রং তুলি নিয়ে শিশুদের হাতে ও গালে বৈশাখি অল্পনা ফুটিয়ে তুলেন।

aaa

এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মাসুম আওয়ামীলীগের নের্তৃবৃন্দদের সাথে নিয়ে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক মন্ডপ ঘুরে দেখেন। এ সময় তিনি নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে সকল ভোদাভেদ ভুলে সরকারের উন্নয়নের ধারাকে অব্যহত রেখে, নবীনগরের সার্বিক উন্নয়নে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। দিবসটি উপলক্ষে যেকোন ধরনের নাশকতা এড়াতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয় হয়েছে বিশেষ নজরধারী।

এছাড়াও বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে প্রচীন কাল থেকেই এ অঞ্চলের প্রায় গ্রামেই বর্ণাঢ্য সাজে বসে বৈশাখী মেলা। লাউর ফতেহপু্র বাজারে ও রছুল্লাবাদ এলাকার যমুনা নদীর তীরে, শ্যামগ্রামের শ্রীঘর বাজারে একদিনের মেলা বসে।

gb

এর মধ্যে পৌর এলাকার ভোলাচং গ্রামে বসে এ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় মেলার হাট। এ মেলা তিনদিন ধরে চললেও কাঠের দোকানিরা তাদের পন্য বিক্রী করেন মাসব্যপী। পুতুল নাচ, বাউল গান, নাগরদোলা, প্রাচীন বাইস্কোপ এখানকার ঐতিহ্য। শিশুরা এখানকার ঐতিহ্যবাহী এসব বিনোদনে আনন্দ উপভোগ করে। অভিভাবকরাও তাদের সন্তানদের বায়না মিটাতে এখানে ছুটে আসেন। মেলায় দুরদুরান্ত থেকে আগত দোকানীরা তাদের বিভিন্ন খেলনাসামগ্রী, খই, মুড়ি, মন্ডা, তালপাতার পাখা, বাঁশি, ফল, ফুলের পসরা সাজিয়ে বসেন। মেলার পাশেই গীরিধারী মন্দিরে চলে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কীর্তন ও বিভিন্ন ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান। সব মিলিয়ে বাঙ্গালীর এ প্রাণের উৎসবকে ঘিরে সকল ধর্মাবলম্বীদের এক মিলন মেলায় পরিণত হয় মেলা প্রাঙ্গন।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25656 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১