শিরোনাম

প্রচ্ছদ জেলা সংবাদ, নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রথম করোনা শনাক্ত হলো নবীনগরে- সর্বত্র আতংক বিরাজ করছে

ডেস্ক রিপোর্ট | শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০ | পড়া হয়েছে 752 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রথম করোনা শনাক্ত হলো নবীনগরে- সর্বত্র আতংক বিরাজ করছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় এই প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। ৬৫ বছর বয়সী এই রোগী জেলার নবীনগর উপজেলার আলমনগর গ্রামের উত্তরপাড়ার বাসিন্দা।

আজ শুক্রবার দুপুরে তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজেটিভ বলে জানা যায়।


করোনা প্রতিরোধে গঠিত নবীনগর উপজেলা কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা যায়, পেশায় কৃষক এই ব্যক্তি গত ২ এপ্রিল হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হলে কর্তৃপক্ষ তার কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন।

এরপর কুমেক কর্তৃপক্ষ ওই ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাসের লক্ষণ আছে জানিয়ে তাকে ঢাকার কুয়েত-মৈত্রী হাসপাতালে নিয়ে যেতে পরামর্শ দেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন আরও জানান, কুয়েত-মৈত্রী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর তার করোনাভাইরাস পরীক্ষা করা হয়। আজ দুপুরে প্রাপ্ত রিপোর্টে তার করোনাভাইরাস পজেটিভ আসে।

আজ শুক্রবার দুপুরে এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র আতংক ছড়িয়ে পড়ে। তবে আতংক কাটাতে মজনু মিয়ার পরিবারসহ আশপাশের ১২ পরিবারের লোকজনকে প্রশাসন ১৪ দিনের জন্য লকডাউনে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে অন্য একটি সুত্র জানায়, মজনু মিয়া এলাকায় আক্রান্ত ছিলেন না, চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকায় তিনি আক্রান্ত হন। তবে এ বিষয়ে স্থানীয়দের আরো বেশি সচেতন থাকতে প্রশাষনের পক্ষ হতে বলা হয়েছে৷

আলমনগর গ্রামের উত্তর পাড়ার বাসিন্দা, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবদুল্লাহ আল রোমান ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জানান, গ্রামের উত্তর পাড়ার আবু তালেবের ছেলে মজনু মিয়া (৬৫) একজন দিন মজুর (মাটি কাটার শ্রমিক)। গত বৃহস্পতিবার তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু আজ তার অবস্থার অবনতি হলে, তার রক্তের নমুনা পরীক্ষার পর তার শরীরে করোনারভাইরাস পজেটিভ পাওয়া যায়। পরে তাকে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মজনু মিয়া মারা গেছেন এবং আলমনগর গ্রামকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে- এমন সংবাদ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে আলমনগরসহ পুরো নবীনগরে প্রচন্ড আতংক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে নবীনগর থানার ওসি রনোজিত রায় ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে নবীনগর পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট শিব শংকর দাস বলেন, মজনু মিয়ার বাড়ির আশপাশের ১২টি বাড়ির প্রায় ৬০ জনকে ১৪ দিনের জন্য পুরোপুরি লকডাউনে রাখা হয়েছে। আর আলমনগর গ্রামবাসীকেও ঘর থেকে বের হতে বারণ করে দেওয়া হয়েছে।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আমরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সন্তান

০৯ মার্চ ২০১৭ | 7704 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০