শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

ক্রিকেট খেলায় জুয়া বাণিজ্য

নবীনগরে জমজমাট ক্রিকেট জুয়া: প্রতিদিন লাখ টাকার হাত বদল

ডেস্ক রিপোর্ট| | মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল ২০১৬ | পড়া হয়েছে 2059 বার

নবীনগরে জমজমাট ক্রিকেট জুয়া: প্রতিদিন লাখ টাকার হাত বদল

খেলোয়াড়রা মাঠে নামার সাথে সাথে ক্রিকেট জুয়া নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ছে উপজেলারশহর থেকে গ্রাম্যঞ্চল পর্যন্ত। টেলিভিশনের সামনে বসে হাজার হাজার ক্রিকেট জুয়ারি এ খেলায় মগ্ন হয়ে উঠেছে। অনেকে টিভি সেটের সামনে বসে খেলা না দেখলেও মোবাইল ফোনে ধরছে লাখ লাখ টাকার বাজি।

ধনকুবের ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে যুবক, তরুণ, এমনকি ছাত্রসহ শ্রমজীবীরাও আসক্ত হয়ে পড়েছে ক্রিকেটের এ জুয়ায়। ক্রিকেট জুয়া বন্ধে পুলিশও রয়েছে তৎপর তবুও এই জুয়া ঠেকানো যাচ্ছে না অত্র জেলায়। এরই মধ্যে মোবাইল ফোনে ক্রিকেট জুয়া খেলার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালত এক জুয়ারিকে ৭ দিনের কারাদন্ড দিয়েছে। এ ছাড়া জেলার সর্বত্র হোটেল রেস্তোরা থেকে শুরু করে ছোট ছোট পানের দোকানে টিভি সেটের সামনে চলছে এই ক্রিকেট জুয়া। এ জুয়ায় অনেক ছোট ছোট ব্যবসায়ী হেরে গিয়ে পথে বসেছেন।


খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুধু মাত্র উপজেলাতে এই বিশ্বকাপ ক্রিকেট নিয়ে এ পর্যন্ত প্রায় অর্ধকোটি টাকার  জুয়া হয়েছে। নবীনগরে  উদ্বেগজনকভাবে এ জুয়া ছড়িয়ে পড়ায় সকলেই চিন্তিত হয়ে পড়েছেন।এ খেলাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে জুয়ারি সিন্ডিকেট। তারা নিজেরা এবং এজেন্টের মাধ্যমে এসব জুয়া পরিচালনা করছেন।

অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট লীগ বা কেরিবিয়ান লীগ এর মধ্য দিয়ে টি২০ এর পথ চলা শুরু হলেও জুয়ারিদের কাছে ব্যাপক বিনোদন হয়ে আসে ভারতের আই পি এল। জুয়া খেলে জানলে একটা সময় তার সাথে মেয়ে বিয়ে দিত না কনে পক্ষ।জুয়াকে ঘ্রিনার চোখে দেখা হত সব শ্রেণীতে। জুয়া বন্ধে কত সামাজিক কর্মসূচিই না নেওয়া হতো একটা সময়,কিন্তুু অবাক হলেও সত্য জুয়া আজ ওপেন সিক্রেট।আমাদের এলাকার এমনও লোকদের ইদানীং জুয়া ধরতে দেখি যারা বিচারক শ্রেনীর মানুষ। কোর্ট টাই পরে দিব্বি আসর জমাচ্ছে।টি২০ ফলে গ্রামের হাট বাজার গুলাতে যে হারে টিভি চলে ওই হারে হিরুইন বিক্রিও চলে বলে মনে হয় না।

ছোট দল নিলে ১০০০ থেকে শুরু আর বড় দল ১২০০ থেকে ৪০০০০ পর্যন্ত বা তারও বেশি যায়।এক জন আবার একাধিক জুয়া ধরে।খেলার মঝে বাজি বিক্রি ও নতুন বাজী ধরা হয়। এদের মধ্যেও আছে দালাল যাদের কাজ জুয়া ধরিয়ে দেওয়া,টাকা জমা রাখা,বাজির দর ভাঙানো ইত্যাদি। ফায়দাটা মুলত দালাল শ্রেনিরাই বেশি নেয়।অবাক হয়ে যাই জুয়ারিদের ক্রিকেট জ্ঞান দেখলে।কোন মাঠে খেলা,কে কে খেলে,কার বেগ্রাউন্ড কেমন সব ওদের মুখস্ত।তবে দু:খের বিষয় জুয়া খেলে আজ অবদি কেও বড়লোক হয়েছে বলে শুনি নাই।তবে নি:শ্বেস হয়েছে এমন উদাহরণ ভুরি ভুরি।

এইত কিছুদিন আগের কথা আমার এক কাছের বন্ধু জুয়ার সাগরে গাঁ ভাসায় আজ নি:স্ব।এখন নাকি ঘরে খাবারও জুটে না।ইদানীং বাইরে বের হলে শুনি ভাই কত,মানে রেট কত। আই পি এল রেখে এখন ইংলিশ কাউন্টি লীগ ধরেছে অনেকে।কি হচ্ছে জাতীর।গুটা দেশটাই কি লাস ভেগাস হয়ে যাচ্ছে নাতো।জিজ্ঞেস করলে বলে ধনি,আমির,আশরাফুল রা খেলতে পারলে আমাদের দোষ কি।জুয়া নিয়ে মারামারি এমনকি লাশ পরার গল্প নতুন কিছু না।তবে কি হিরুইন,গাজা আর ইয়াবার পর নিরব ঘাতক হিসাবে আভির্বাব হল টি২০।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25658 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১