শিরোনাম

প্রচ্ছদ নবীনগরের খবর, শিরোনাম, স্লাইডার

নবীনগরে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ে ৪৮১ জনের বিরুদ্ধে ভাতা তুলার অভিযোগ

মাহাবুব আলম লিটন | শুক্রবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৬ | পড়া হয়েছে 941 বার

নবীনগরে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ে ৪৮১ জনের বিরুদ্ধে ভাতা তুলার অভিযোগ

নবীনগর উপজেলায় ৪৮১জন ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা সম্মানি ভাতা উত্তোলন করে নিচ্ছে।  মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নেতৃবৃন্ধদের বিরুদ্ধে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধদের কোন তালিকায় নাম নেই এমন ৪৮১ জন ভূয়া মুক্তিযোদ্ধাকে গেজেট তালিকায় নাম উঠিয়ে প্রতি মাসে ভাতা উত্তোলন করে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। অতিরিক্ত ৪৮১জন ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা কিভাবে ভাতা পাচ্ছে তার সত্যতা যাচাইকল্পে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কমিটি স্থগিত করে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করত: নতুন যাচাই বাছাই কমিটি গঠনের আবেদন জানিয়েছেন নবীনগর উপজেলার প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা।

সুত্র জানায়, ভারতীয় তালিকায় নবীনগর উপজেলার ৪৪৬ জন মুক্তিযোদ্ধার নাম রয়েছে। ভারতীয় তালিকায় যাদের নাম উঠে নাই তাদের যাচাই বাছাই করে লাল মুক্তিবার্তায় মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ১১৬৯ জন। কিন্তু সমাজসেবা অফিস সুত্র জানায় বর্তমানে ভাতা উত্তোলন করছেন ১৬৫০জন। নবীনগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদে অবস্থান নেওয়া কতিপয় নেতারা সমাজকল্যানে চাকুরী করে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা নামধারী দুস্কৃতকারিদের দিয়ে এসব অতিরিক্ত ভূয়া মুক্তিযোদ্ধাদের নাম কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের কিছু দুস্কৃতিকারি অফিসারদের যোগসাজসে গেজেট করিয়ে প্রতি মাসে ভাতা উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে।  বৃহস্পতিবার (১৩/১০) সন্ধ্যায় স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা সাংবাদিকদের কাছে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গত সোমবার(১০/১০) মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীর বরাবরে উপজেলার প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মোতালিব এ আবেদন করেন।


এ ব্যাপারে উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা ইউনুছ মিয়া, নবীনগর সদর উত্তর পাড়ার বীরমুক্তিযোদ্ধা আজাহারুল ইসলাম লালু, ভোলাচং দোলাবাড়ি গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা কাজী কবির উদ্দিন,শান্তিপুর গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা আবদুল কাদের, শ্রীরামপুর গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. আউয়াল মিয়া সহ অনেক মুক্তিযোদ্ধা এসব অনিয়ম দুর্নীতি যারা করেছে তদন্তের মাধ্যমে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শান্তি দাবী জানিয়ে বলেন, অনেক কষ্ট করে লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে এদেশ স্বাধীন করেছি, সংসদের দুস্কৃতিকারি কর্মকর্তা ও ভূয়া মুক্তিযোদ্ধারা ওই ভাতা ভাগবাটোয়ার করে লুটেপুটে খাবারের জন্য নয়, ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা আবদুল কাদির, আবদু মিয়া, শান্তি রঞ্জন সাহা, ফজলুল হক, মোসলেম উদ্দিন  মৃধা, গিয়াস উদ্দিনসহ ৪৮১ জন রয়েছেন যাদের লাল বার্তায় কোন নাম নেই।

এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের বর্তমান কমান্ডার এমদাদুল হক সাড়ে এগারশ ( ১১৫০) এর কিছু উপরে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা রয়েছে স্বীকার করে বলেন, তাদের বিরুদ্ধে  ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা উত্তোলনের  টাকা ভাগবাটোয়ারা করে খাওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মন্ত্রী বরাবরে অভিযোগ হয়েছে শুনেছি, আমরা কোন কাগজ পাইনি, তবে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বিষয়ে আমাদের যাচাই বাছাই কমিটি এর সত্যতা যাচাই করে দেখবে।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

নবীনগরে ভুয়া পুলিশ আটক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | 25654 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০