শিরোনাম

প্রচ্ছদ খেলাধুলা

পাঞ্জাবের কাছে হেরেছে মুম্বাই

অনলাইন ডেস্ক | শনিবার, ১৪ মে ২০১৬ | পড়া হয়েছে 1144 বার

পাঞ্জাবের কাছে হেরেছে মুম্বাই

মিচেল ম্যাকক্লেনাঘান আঘাত হানলেন শেষে। একই ওভারে দুই উইকেট নিলেন। তাতে সবাইকে ছাড়িয়ে আইপিএলে সর্বোচ্চ ১৬ উইকেট হলো তার। বেগুনী টুপিটা তার কাছেই থাকলো। কিন্তু মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের তাতে সামান্যই লাভ হলো। বেশ সহজেই আইপিএলের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের ৭ উইকেটে হারিয়েছে পয়েন্ট টেবিলের তলানীর দল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। মার্কাস স্টোইনিসের ৪ উইকেটের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে মুম্বাই ৯ উইকেটে করেছিল ১২৪ রান। ঋদ্ধিমান সাহার ৫৬ ও অধিনায়ক মুরালি বিজয়ের অপরাজিত ৫৪ রানে ১৭ ওভারে ৩ উইকেটে ১২৭ রান করেছে পাঞ্জাব।

শুক্রবার বিশাকাপত্তমের এই হারে মুম্বাইয়ের শেষ চারে খেলার আশাটা আরো ধাক্কা খেলো। ১২ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ১২ই রইলো। ১১ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলে এক ধাপ উন্নতি হলো প্রিতি জিনটার পাঞ্জাবের।


প্রথম ওভারেই হাশিম আমলাকে তুলে নিয়ে মুম্বাই লড়াই করার ইঙ্গিত দিয়েছিল। কিন্তু ১১৬ রানের জুটি গড়ে ফেললেন ঋদ্ধিমান ও বিজয়। তাদের কোনোভাবে ঠেকাতে পারেনি মুম্বাইয়ের বোলাররা। সতর্ক হয়ে এই জুটি এগিয়েছে। যাতে অল্প রানের টার্গেটটা টপকে যেতে কষ্ট না হয়। হুমকি না আসে। ঋদ্ধিমান ৪০ বলে ৫৬ রানের কার্যকর ইনিংস খেলে বিদায় নিয়েছেন। আর বিজয় ৫২ বলে ৫৪ রান নিয়ে ম্যাচ জয় করেই মাঠ ছেড়েছেন।

এর আগে স্টোইনিসের সাথে হাত লাগিয়েছিলেন দুই ‘শর্মা’ মোহিত ও সন্দিপ। ওই দুই পেসার শুরুতে দুই উইকেট নিয়েছেন। শেষে আরো দুটি। তাদের এই ২+২ চারের সাথে স্টোইনিসের ৪ যোগ হয়ে শেষ করে দিয়েছে মুম্বাইকে।

১৩.৩ ওভার। মুম্বাইয়ের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৬১ রান। এখান থেকে আর কতো রান হতে পারে মুম্বাইয়ের? শুরু থেকে বিপদে থাকা মুম্বাই এরপরও তেড়ে ফুড়ে খেলেছে। অক্ষর প্যাটেল ও কেসি কারিয়াপ্পাকে পর পর দুই ওভারে বেদম পিটুনি দিলেন কাইরন পোলার্ড ও ক্রুনাল পান্ডিয়া। দুই ওভারে ১৭ করে রান উঠেছে। তাতে একশো পেরিয়ে আবার স্টোইনিসের হামলার মুখে ভেঙ্গে পড়ে মুম্বাই।

প্রথম তিন ওভারের মধ্যে মোহিত ও সন্দিপ দুটি উইকেট ফেলেছেন। ৮ রানে ২ উইকেট হারানোর ধাক্কা অধিনায়ক রোহিত শর্মা সামলাচ্ছিলেন সতর্কভাবে। রান উঠছিল কম। এই সময় ২৪ বলে ১৫ রানে রোহিতের ইনিংস শেষ হলো অক্ষরের বলে। ২৮ বলে ২৫ রান করে নিতিশ রানা হয়েছেন স্টোইনিসের প্রথম শিকার। ১৪তম ওভারে স্টোইনিস তুলে নেন জশ বাটলারকেও (৯)। এরপর ১৭তম ওভারের পরপর দুই বলে তিনি শিকার করেছেন হুমকি হয়ে ওঠা পন্ডিয়া ও পোলার্ডকে। পান্ডিয়া ১২ বলে ১৯ রান করেছেন। ২০ বলে ২৭ রান পোলার্ডের। তার রানই ইনিংস সর্বোচ্চ। মুম্বাইয়ের ব্যাটিংয়ে গভীরতা আছে। কিন্তু দুই শর্মা শেষের দিকে দুই উইকেট নিয়েছেন। এই আকালে ১০ বলে ১৪ রানে অপরাজিত থেকেছেন হরভজন সিং। কিন্তু বল হাতে ভাজ্জিরা লড়াইটা করতে পারেননি। হারতে হয়েছে তাদের।

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

৩০০ পেরিয়েও জিততে পারেনি ধোনিরা

১১ জানুয়ারি ২০১৭ | 1645 বার

বাংলাদেশের ঐতিহাসিক টেস্ট জয়

৩০ অক্টোবর ২০১৬ | 1390 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০