শিরোনাম

প্রচ্ছদ জাতীয়, শিরোনাম, স্লাইডার

শফিক রেহমানের জন্য আন্তর্জাতিক উদ্বেগ

অনলাইন ডেস্ক | রবিবার, ২২ মে ২০১৬ | পড়া হয়েছে 1278 বার

শফিক রেহমানের জন্য আন্তর্জাতিক উদ্বেগ

কারারুদ্ধ প্রবীণ সাংবাদিক শফিক রেহমান প্রচণ্ড স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে আছেন, এমন উদ্বেগজনক খবর প্রকাশ করেছে ইন্ডিপেন্ডেন্ট। পরিবারের সদস্য ও ছেলের বরাত দিয়ে যুক্তরাজ্যের প্রভাবশালী এ দৈনিকটি জানিয়েছে, নির্জন কষ্টদায়ক একটি সেলে আটক শফিক রেহমান দরকারি ওষুধপাতি পাচ্ছেন না।

পত্রিকাটি বলছে, ২০১৩ সাল থেকে ‘বিরোধীদল ঘেঁষা’ তিনজন সাংবাদিক এমন আটক রয়েছেন । ৮১ বছর বয়সী খ্যাতনামা এই সিনিয়র সাংবাদিকের নামে প্রধানমন্ত্রীর পুত্রকে অপহরণ ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগ নিছক পরিহাস বলে মন্তব্য করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। বাংলাদেশী-বৃটিশ এই সাংবাদিকের ছেলে সুমিত রেহমান জানান, গত মাস থেকে ৮১ বছরের মানুষটিকে পাখাছাড়া একটি কামরার মেঝেতে ঘুমাতে হচ্ছে। দিনরাতের ২৩ ঘণ্টাই তাকে লক-আপে আটক রাখছে কর্তৃপক্ষ। তিনি ডায়াবেটিক রোগী ও ধমনীতে স্টেন্ট বসানো। তার প্রতিদিন ওষুধ লাগে, কিন্তু কর্তৃপক্ষ তা দিচ্ছিল না। এমনি পরিস্থিতি চলছিল দিনের পর দিন। বুকে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করছিলেন শফিক রেহমান, সাথে ডায়ারিয়া। এমন অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হয় বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানা যায়।


তার এই অসুস্থতা প্রসঙ্গে তার ছেলে বন্দি সাংবাদিকের থাকার স্থান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। ইন্ডিপেন্ডেন্টকে তিনি জানান, প্রবীণ সাংবাদিককে কড়া নিরাপত্তায় একটি নির্জন ছোট্ট সেলে রাখা হয়। মাত্র তদন্ত চলছে, তার নামে কোন চার্জ আনা হয়নি, এই অবস্থায় সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় জনমানবহীন সেলে রাখার পুরোপুরি বেআইনী।

চিকিৎসার পর শংকামুক্ত অবস্থায় জেলে ফিরিয়ে নেয়া হয়েছে সাংবাদিক শফিক রেহমানকে। কিন্তু তার পরিবার মোটেও নিশ্চিন্ত হতে পারছে না। সুমিত রেহমান তার পিতার বিষয়টির প্রতি ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলেছে, রেহমানকে যে অবস্থায় আটক রাখা হয়েছে তা আন্তর্জাতিক আইন পরিপন্থী। আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী আটক ব্যক্তিদের সংগে কোনো রকম নিষ্ঠুর, অমানবিক বা অসম্মানজনক আচরণ না করার কিংবা তেমন ধাঁচের শাস্তি না দেয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। হিউম্যান রাইটস গ্রুপের দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের পরিচালক চম্পা প্যাটেল অবিলম্বে শফিক রেহমানকে নির্জন কারাগার থেকে মুক্ত করে সুস্থ করে তোলার জোর দাবি তুলেছেন। তিনি বলেন, ৮১ বছরের একজন ডায়াবেটিক রোগী, যার হার্টেও সমস্যা রয়েছে, তাকে এভাবে আটকে রাখার ঘটনা মানুষের বিবেকে আঘাত করে।

এসবিসি রিপোর্ট, ইন্ডিপেন্ডেন্ট অবলম্বনে :

Comments

comments

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

ভালো নেই : আকবর আলি খান

০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ | 6964 বার

স্বর্ণের দাম কমেছে

২৯ মে ২০১৬ | 3692 বার

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১